বাংলাদেশ 

দেশের পণ্য না নেওয়ায় ভারতীয় পণ্য আমদানি বন্ধ করলেন ব্যবসায়ীরা

জাগরণী ডেস্ক:
করোনাকালে দীর্ঘ ১০০ দিন পার হয়ে গেলেও ভারতীয় কর্তৃপক্ষ রফতানি পণ্য না নেয়ায় বুধবার (১ জুলাই) সকাল থেকে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে রফতানিকারকরা এক হয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন আমদানি বাণিজ্য কার্যক্রম। ১০০ দিন পেরিয়ে গেলেও বাংলাদেশ থেকে কোনো পণ্যচালান ভারতে রফতানি হয়নি অথচ ৭৭ দিনের মাথায় ভারতীয় পণ্য বাংলাদেশে আসা শুরু হয়।
জানা গেছে, করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় ২২ মার্চ থেকে এই দুই বন্দরের মধ্যে আমদানি-রফতানি বন্ধ হয়ে যায়। স্থানীয়ভাবে দু’দেশের বন্দর, কাস্টমস, বন্দর ব্যবহারকারীরা দফায় দফায় বৈঠকের পর গত ৭ জুন থেকে সীমান্ত বাণিজ্য সচল হয়। এরপর থেকে ভারতীয় পণ্য বাংলাদেশে আসছে। কিন্তু বাংলাদেশি কোনো পণ্য ভারতে রফতানি হয়নি।
বেনাপোলের বন্দর ব্যবহারকারীরা বলছেন, করোনা সংক্রমণের শঙ্কায় নিরাপত্তাজনিত কারণ দেখিয়ে ভারতীয়রা বাংলাদেশ থেকে কোনো রফতানি পণ্য গ্রহণ করছেন না। ফলে আমদানি কার্যক্রম স্বাভাবিক থাকলেও ব্যাহত হচ্ছে রফতানি। বাড়ছে বাণিজ্য ঘাটতি। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন রফতানিকারকরা। বৈদেশিক আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দেশ। দেশে স্থলপথে যে রফতানি হয় তার ৭০ শতাংশ হয় বেনাপোল বন্দর দিয়ে। প্রতি বছর এ বন্দর দিয়ে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা মূল্যের ৯ হাজার টন বাংলাদেশি পণ্য ভারতে রফতানি হয়। ফলে এ বন্দর দিয়ে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে দুই হাজার কোটি টাকা।
বন্দর সূত্রে জানা গেছে, করোনার মধ্যে আড়াই মাস বন্ধ থাকার পর গত ৭ জুন থেকে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের সঙ্গে আমদানি বাণিজ্য কিছুটা স্বাভাবিক হলেও এখন পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে রফতানি বাণিজ্য। এতে ভারতে প্রবেশের অপেক্ষায় বেনাপোল বন্দরে প্রায় দুই শতাধিক ট্রাক রফতানি পণ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। রোদ, বৃষ্টিতে যেমন পণ্যের গুণগত মান নষ্ট হচ্ছে তেমনি ব্যবসায়ীদের লোকসানের পাল্লাও ভারী হচ্ছে। এ অবস্থায় বাংলাদেশ অংশের ব্যবসায়ীরা স্থলপথে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে রফতানি বাণিজ্য সচলের জন্য বার বার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। করোনা সংক্রমণের অজুহাত দেখিয়ে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ রফতানি পণ্য নিতে চাইছে না। আমদানিতে ‘হ্যাঁ’ বললেও রফতানিতে ভারত ‘না’ বলেই চলেছে। গত ৭ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ভারত থেকে ৪ হাজার ২শ ট্রাক পণ্য বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করলেও একটিও রফতানি ট্রাক গ্রহণ করেনি ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।
বেনাপোলসহ আশেপাশের রফতানিকারকরা বলছেন, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁ পৌরসভার মেয়রের খামখেয়ালিপনা, আমদানি-রফতানিতে নাক গলানো, পৌরসভার কালিতলা পার্কিং সৃষ্টি করে বিভিন্ন রাজ্য থেকে আসা ট্রাকগুলো জোর পূর্বক পেট্রাপোল বন্দরের সেন্ট্রাল ওয়্যারহাউজ কর্পোরেশনের টার্মিনালে না পাঠিয়ে চাঁদার দাবিতে কালিতলা পার্কিংয়ে রেখে দেয়ায় বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে দু’দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বন্ধ হওয়ার পথে। দীর্ঘদিন পণ্যবাহী ট্রাক আটকে রাখার ফলে অনেক আমদানিকারক এ পথে আমদানি-রফতানি বন্ধ করে দিয়েছেন। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে এদেশের রফতানিকারকদের। ভারত ঠিকই তাদের পণ্য রফতানি করছে কিন্তু বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের পণ্য রফতানির অনুমতি দিচ্ছে না।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment