বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি 

করোনায় আপনার মোবাইল সেট জীবাণুমুক্ত করেছেন কি ?

জাগরণী ডেস্ক

কোভিড-১৯-এর সংক্রমন থেকে মুক্ত থাকতে সকলেই এক ধরনের গৃহবন্দি। তাই মুহূর্তে সব খবর পাওয়ার একমাত্র মাধ্যম ফেইজবুক। যা বেশির ভাগ মানুষই ব্যবহার করেন মোবাইল সেটের মাধ্যমে। কিন্তু আপনি যে মোবাইল সেটটি ব্যবহার করছেন তা কি জীবাণুমুক্ত ! না হলে এখনই জীবাণুমুক্ত করে নিন। নয়তবা সুযোগ বুঝে সংক্রমিত হতে পারেন আপনিও। স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনা ভাইরাস যেহেতু নাক ও মুখ দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে আর মোবাইলে আমরা কথা বলি গাল ও কানের সাথে মিলিয়ে, নাক ও মুখের খুব কাছ থেকে। সেহেতু মোবাইল অপরিস্কার থাকলে আর মোবাইলে কোন রকমভাবে এই ভাইরাস লেগে থাকলে আমরা এ দিয়েও সংক্রমিত হতে পারি। ভায়ারোলজিস্টদের মতে মোবাইল হল ‘হাই টাচ সারফেস’-এর অন্যতম উদাহরণ। এটি ঠিকভাবে পরিস্কার করা না হলে মোবাইল থেকেও ভাইরাস ট্র্যান্সমিশনের ঝুঁকি থাকে খুব বেশি।

কি ভাবছেন ? মানুষতো সাবান বা হ্যান্ড ওয়াশ অথবা হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করে। কিন্তু মোবাইল কি পানি দিয়ে বা হ্যান্ড স্যানেটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করা যায়। তাহলে , মোবাইল কি ভাবে পরিষ্কার করব।

 মোবাইল জীবাণুমুক্ত করার কৌশল আপনি চলার পথে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ব্যক্তিদের সাথে মিশছেন। কোন ব্যক্তি করোনা ভাইরাস বহন করছেন বা জীবাণু বহন করছে তা আপনি জানেন না। পরে কাজের শেষে বাড়ি ফিরে ঘরে থাকা ব্যক্তিরদের গেইট বা দরজা খুলতে বলুন। বাড়িতে কেউ না থাকলে কোন টিস্যু বা কাপড়ের টুকরো ব্যবহার করুন। সোজা চলে যান বাথরুমে। পোশাক পরিবর্তন করে হাত-মুখ সাবান দিয়ে বা হ্যান্ড স্যানটাইজার দিয়ে ভাল করে পরিষ্কার করে নিন। এরআগে, আপনার ব্যবহৃত ফোনটি বন্ধ করুন। এরপর নরম কাপড়ে স্যানিটাইজার বা কীটনাশক লোশন ভিজিয়ে তা আলতো করে পরিষ্কার করে নিন। পরে তা সূর্যের আলো বা ফ্যানের বাতাসে শুকিয়ে নিন। আবার হ্যান্ড স্যনিটাইজার বা কীটনাশক লোশন এমন ভাবেই নিবেন না বা লাগাবেন না, যাতে তরল অংশ মোবাইলের ফাঁকা স্থান দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করবে। তাহলে কিন্তু‘ আপনার মোবাইল সেটটিকে হারাতে হবে।

Please follow and like us:

Related posts

Leave a Comment

করোনাভাইরাস সতর্কতায়

বারে বারে হাত ধুই, হাঁচি কাশিতে রুমাল/টিস্যু ব্যবহার করি, ময়ালা হাতে হাত মুখ স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকি। সরকারী নির্দেশনা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, ঘরে থাকি।